PALKI 10PALKI 11PALKI 12PALKI 13

কয়েক দিন আগে আমি শিল্পী আব্দুল লতিফ সাহেব সম্বন্ধে একটা লেখা পোস্ট করেছিলাম। আজ তার চিন্তাধারায় মৃত্যু ও বিয়ের তুলনা সম্বন্ধে কয়েকটা কথা বলবো। আমরা এই কথাগুলো আমাদের হৃদয়ে উপলব্ধি করতে চেষ্টা করবো।

আমাদের শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করার পর আমাদেরকে সাবান ও গোলাব জল দিয়ে গোসল করান হয়, সাদা কাপড়ের পোশাক পরানো হয় এবং লোবানের সুবাস ব্যাবহার করা হয়। আত্মীয়স্বজন বন্ধুবান্ধবরা মৃত দেহের কাছে বসে কুর’আন তেলাওয়াত করে। বিদায়ের সময় তাদের অনেকে আবার কান্নাকাটি করে। কাঁচা বাসের খাটিয়া ঘরের দরজার সামনে লাশের জন্য অপেক্ষা করে । দোয়া কালাম ও অন্যান্য যাবতীয় কাজ শেষ হয়ে যাওয়ার পর লাশকে ধীরে ধীরে সেই কাঁচা বাসের খাটিয়ায় শুয়িয়ে কাঁধে করে নিয়ে যাওয়া হয় তার প্রভু-বন্ধুর কাছে আজিমপুরের গোরস্থানে। যাবার পথে খাটিয়া-বাহক ও অন্য সবাই আল্লাহর নাম উচ্চারণ করে । গোরস্থানে তাকে কবরের মাটির বিছানায় শুয়িয়ে দেওয়া হয়। গোরস্থানই তার শেষ বাসস্থান। সেখানে মুয়াজ্জিন প্রতিদিন সুর দিয়ে আজান দেন। সেখানে সে তার বন্ধু আল্লাহ সুবাহানাহু তা’য়ালা’ সম্বন্ধে সকাল বিকাল শ্রুতিমধুর আজানের সুর শুনতে পায়।

কন্যাকেও বিয়ের সময় সাবান দিয়ে গোছল করানো হয় এবং তাকে নতুন সুন্দর পোশাক ও সুবাস দিয়ে সাজানো হয়। তাকে সাজানের সময় মেয়েরা সয়লা গান করে। তার পোশাকে সুবাস ব্যবহার করা হয়। পালকি দাঁড়িয়ে থাকে ঘরের দরজার সামনে। তাকে বিদায় দেওয়ার সময় আত্মীয়স্বজন বন্ধুবান্ধব কান্নাকাটি করে। এর পর কন্যাকে ধীরে ধীরে সতর্কতার সাথে পালকিতে বসিয়ে দাওয়া হয় এবং পালকি-বাহকরা পালকিখানা কাঁধে নিয়ে চলে যায়। চলার পথে পালকি-বাহক ও অন্যান্য সবাই উচ্চ স্বরে “আল্লা আল্লা বোলো মোমিন” বলে। পরিশেষে তাকে তার প্রিয় স্বামী-বন্ধুর বাড়ীতে ফুল সয্যায় রেখে আসা হয়। সেখানে তার বন্ধুর সাথে তার দেখা হয়। আমাদের দেশের মেয়েরা তাদের স্বামী-বন্ধুর বাড়ী গিয়ে সংসার করে সারা জীবন। সেই সংসারে সে সারা জীবন স্বামীর মধুর ভালোবাসার কথা শুনে।

আমি শিল্পী আব্দুল লতিফ সাহেবকে খুব কাছে থেকে দেখেছি। আমি তার বাড়ীতে থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করেছি। পরবর্তি কালে আমি ক্যানাডার ম্যাকগিল বিশ্ববিদ্যালয়ে সুফী মতবাদের উপর কিছু পড়াশুনা করেছি। আমার দৃঢ় বিশ্বাস যে শিল্পী আব্দুল লতিফ সাহেব ছিলেন একজন সুফী ফকির। তিনি আজ আর আমাদের মাঝে নাই। তিনি পালকিতে চরে চলে গেছেন তার প্রাণের বন্ধুর কাছে। আল্লাহ যেন তার নিজের সান্নিধ্যে তার জন্য জায়গা করে দেন।

গান কয়েকখানা :
“আমারে সাজাইয়া দিও “
“দুয়ারে আইসাছে পালকি”
“এবার আমি বাসা নেব বন্ধুর কাছে আজিমপুর।”
“এবার মোরে বিদায় করো যাই “