Rabb Natis
উপরোক্ত  ছবির তরুণ তরুণীরা আমার নাতি নাতনিরা। বা থেকে ডানে: আদিল ২৩, কামিল ১৭, ও আলিয়া ১২। তারা আমার মেয়ের ছেলেমেয়েরা। আদিল চাকরি করে টরোন্টোর একটা কোম্পানির সাথে, কামিল কলেজে পড়ে এবং ডাক্তারি পড়ার আশা রাখে, আলিয়া এখন গ্রেড ৭-এ পড়ে I এর পর আনিকা ও তার স্বামী ছামির ২৪। আনিকা চট্টগ্রামের মা-বাবার মেয়ে, কিন্তু বড়ো হয়েছে আমেরিকায়। সে আমাদের নতি নাতনিদের সাথে এমনভাবে মিশে গেছে যে আমাদের মনে হচ্ছে যে সে আমাদের ঘরেই বড়ো হয়েছে। সে এতো মিষ্টি, ভদ্র, নম্র, নিরীহ ও মেধাবী যে তার মতো তরুণীর সংখ্যা এদেশে খুব কম। সে ওয়াশিংটন ডিসিতে শিক্ষকতা করে। তার স্বামী ছামির কাজ করে ওয়াশিংটনের একটা কোম্পানিতে। এরা সবাই গত তিন দিন ধরে আমাদের মনট্রিয়ালের বাড়িটাকে খুব গরম করে রেখেছিলো। তাদের হৈহুল্লা, হাসি ঠাট্টা, মারামারি ও দৌড়াদৌড়ি আমাদেরকে অনেক আনন্দ দিয়েছে। আজ তারা সবাই চলে গেলো, আর আমাদের বাড়িটা আবার মরুভূমির মতো খা খা করতে লাগলো। আমরা বুড়ো বুড়ি দু ‘জন আবার বাড়ির এক কোনায় জীবন যাপন করা শুরু করলাম। আমার সবার বড়ো নাতি আদিব ২৫ ফ্লোরিডায় চাকরি করে এবং ৫ম নাতি নাবিল ১৬ ডাক্তারি পড়ার জন্য তৈরী হচ্ছে। তারা তাদের কাজের ব্যস্ততার জন্য মন্ট্রিয়ালে আসতে পারেনি। এরা তিন ভাই হলো আমার ছেলের ঘরের নাতি।

 — withAnika Alam and Samir Rabb.